সময়কাল নিউজ
সময়কাল নিউজ

বিজয়নগরে লোহর নদী পরিদর্শনে পানি উন্নয়ন বিভাগ ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের নিদারাবাদ গ্রাম সহ বেশ কয়েকটি গ্রামের বুক ছিঁড়ে ভয়ে যাওয়া অনেক পুরাতন একটি নদী যার নাম লোহর নদী।যে নদীতে মিলিত রয়েছে বেশ কয়েকটি খাল।সব কয়টি খাল নিয়ে লোহর নদীটি মিলিত হয়েছে তিতাস নদীতে।
এক শ্রেণীর ভূমিদূস্যুরা নদীটি ক্রমান্বয়ে ভরাট করায় নদীটির সৌন্দর্য এবং ঐতিহ্য হারিয়ে যায়। এ নিয়ে লোহর নদীর নিরব কান্না শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।বিগত কয়েক বৎসর যাবৎ নদীটি ভরাটের কারণে নদীর পারে বসবাস কারীরা নদী ভাঙ্গনের কবলে পরে।সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় হরষপুর দেওয়ান বাজারের পূর্ব পাশে সরকারী মোহাজের কলোনী ও হরষপুর -মির্জাপুর রাস্তা নদীর গর্ভে বিলীন হতে যাচ্ছে।
খবর নিয়ে জানা যায় বিগত বৎসর বাংলা টিভি সহ প্রিন্ট এবং ইলেক্ট্রনিক্স গণমাধ্যমে নদীর গর্ভে বিলীন হচ্ছে এই শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। তারি ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায় নদীটি পুনরায় খননের উদ্যোগ গ্রহণ করেন মাননীয় সরকার বাহাদুর। ইতিমধ্যে নদীটি খনন কাজ শুরু হলেও নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে । গত ১২/০৭/২০২০ইং রোজ রবিবার বেলা ১১ঘটিকার সময় পানি উন্নয়ন বিভাগ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা হতে বাবু রঞ্জন সুকুমার দাস নির্বাহী প্রকৌশলী (অতিরিক্ত দায়িত্ব )ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগ পরিদর্শনে আসেন।
এসময় ৫নং হরষপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান সারোয়ার রহমান ভূইঁয়া,২নং ওয়ার্ড কমিশনার নাছির উদ্দিন (মেম্বার ),উপজেলা কৃষকলীগ নেতা শাহীন চৌধুরী সহ এলাকার মান্যগণ্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। নদী খনন ও নদী ভাঙ্গন নিয়ে আলোচনার এক পযার্য়ে নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন নদী খননে ও নদী ভাঙ্গনে স্হায়ীভাবে সমাধান করাতে চাইলে এলাকাবাসীর পক্ষে মাননীয় সংসদ সদস্য সহ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করতে হবে।অস্হায়ীভাবে নদী ভাঙ্গনের উপর ৩০০ মিটার কাজের জন্য বরাদ্দ রয়েছে।এ ব্যাপারে ৫নং হরষপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সারোয়ার রহমান ভূইঁয়া বলেন নদী খননে যদি নদী কে তার পুর্বের গতিপথে পিরিয়ে দেওয়া যায় মোহাজের কলোনী ও হরষপুর দেওয়ান বাজার সরকারী রাস্তা সহ এলাকাসী উপকৃত হবে। নাছির উদ্দিন মেম্বার বলেন নদীর পারের মানুষ গুলোকে নিয়ে আমরা অনেক দুশচিন্তায় রয়েছি কখন জানি নদীর গর্ভে ঘরবাড়ী সহ ছোট ছেলে মেয়েরা হারিয়ে যায়। এলাকাবাসীর পক্ষে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

উল্লেখ্য যে বিগত ১৫/০৯/২০১৯ইং তারিখে স্হানীয় সংবাদকর্মী কাজী মো: শরিফ উদ্দিন নদী ভাঙ্গন,নদী খনন, রাস্তাঘাট নিয়ে উপজেলা পরিষদ এবং উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করেন লিখিত আবেদনের মাধ্যমে ।

সময়কাল নিউজ